Thursday, November 26, 2020
Health Tipsসেক্স টিপস

মেয়েদের যৌনাঙ্গে দূর্গন্ধ হবার কারণ এবং দূর্গন্ধ দূর করার উপায়

মেয়েদের যৌনাঙ্গে দূর্গন্ধ হবার কারণ এবং দূর্গন্ধ দূর করার উপায়

মেয়েদের যৌনাঙ্গে দূর্গন্ধ হবার কারণ এবং দূর্গন্ধ দূর করার উপায়:
আজকে আমাদের আলোচনার টপিক টা হচ্ছে মেয়েদের যৌনাঙ্গে দুর্গন্ধ হবার কারন কি?

মানুষের দেহের কিছু ছিদ্র আছে যেমন নাকের ছিদ্র আছে, চোখ আছে, মুখ আছে, এই সবগুলো ছিদ্র থেকে কিন্তু কিছু পরিমাণ সিক্রেশন আসে এবং এটা আশা জরুরী কেননা ওই জায়গাতে কনস্টেবল রাখার জন্য।এবং আমাদের শরীর থেকে যে সিক্রেশন গুলো আসে সেগুলো হচ্ছে ভেক্টরের সাডার মানিয়েছে এন্টাসিড টাইপেড।ওই জায়গাগুলোতে জীবাণুর আক্রমণ যাতে না হয় এবং ওই জায়গাগুলোতে যেন সব থেকে বেশি হেলদি থাকে এবং ওই জায়গাগুলোতে স্বাভাবিক কাজকর্ম সেটা যাতে ঠিক থাকে তার জন্য।ঠিক তেমনি মেয়েদের যৌনাঙ্গ কিছু সিচুয়েশন আসে ডিসিশনটা আশা খুবই জরুরী এইটা কিন্তু কোনো অসুস্থতা না।অনেকেই ডক্টরের কাছে এই বিষয়ে খুবই আফসেট থাকে।সকলের একটি প্রশ্ন থাকে কেন সিক্রেশন আসছে?

এই সিক্রেশন টি আসা টোটালি নরমাল এটা থাকতেই হবে এটা না থাকলে যৌনাঙ্গের অনেক ধরনের ইনফেকশন হবে এমনকি আমাদের যে স্বাভাবিক কাজকর্ম সেটা বিঘ্ন হবে এবং সহবাসের যে একটা ব্যাপার আছে অনেকে বলে থাকে পেট ফুল হয় ডিস্পরিউনিয়া হয় ওই ডিস্পরিউনিয়া, পেট ফুল সবই কিন্তু  জন্ম সিক্রেশন হয় যখন যায়।সিক্রেশন যখন এবনরমাল হয়ে যায় সিক্রেশন পরিমাণটা যখন কমে যায় তখন কিন্তু এই সমস্যাগুলো দেখা দেয় এখন আসেন প্রধান যে প্রশ্নটা ছিল কেন দুর্গন্ধ হয়?দুর্গন্ধ হতে পারে দুটি কারণে স্বাভাবিক আরেকটি হচ্ছে অস্বাভাবিক এখন যেহেতু ওখানে সিক্রেশন আসছে অনবরত ওই জায়গাটা একটা হাই জিনিয়া টা বিশাল প্রশ্ন থেকে যায়।প্রথম যেটা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন না থাকা অথবা এভাবে চিন্তা করি এরকম কোন মেয়ে থাকে যাদের অনেক লম্বা সময় বাইরে কাজ করতে হয়। বা সকালবেলা ঘর থেকে বের হয়ে রাতে তাকে বাসায় ফিরতে হয়। তাহলে এই যে লম্বা একটা সময় 12 ঘন্টা 16 ঘন্টার সময়।সে যে একটি কাপড়ে থাকছে এই যে সিস্টেমটা তার শরীরের জন্য খারাপ সেজে আন্ডার ওয়ারটা ইউজ করছে সেটা বারবার হয়তো টয়লেটে যাচ্ছে বারবার টয়লেটে যাওয়া আসার মধ্য কিন্তু

তারা আন্ডার ওয়ারটা কিছু সিক্রেশনে ভিজে যাচ্ছে।তো ভিজে গেলে যে সমস্যাটি হয় সেটা হচ্ছে ওই স্থানটি দেই বাতাস কম যাওয়া ইনভেন্টি মহেশ হয়ে থাকে।সেটা জীবাণুর থাকার জন্য খুবই ভালো একটা পরিবেশ। সেখানে খুব সহজেই ইনফেকশন হতে পারে ।যখনই ওখানে ইনফেকশন হয় তখন সিক্রেশন এর পরিমান টি আর একটু বেড়ে যায়। হয়তো তার কারেক্টর তার একটি বৈশিষ্ট্য সেটাও চেঞ্জ হয়ে যায় ।নর্মলি সিক্রেশন থাকে লতারি থাকে কিন্তু যখনই ওখানে কোন ইনফেকশন হয়। সেটা কালার হুলুদ হয়ে গেল, একটু চেঞ্জ হয়ে গেল, সেটা একটু গন্ধ হল, সেখানে একটু ইচিং হলো ,এই জন্য ইচিং এর জন্য সিক্রেশন আরো বাড়তে থাকে এবং সিক্রেশন বাড়ার জন্য সেখানে কিন্তু দুর্গন্ধ আরো বাড়তে থাকে। এখন দেখতে পাচ্ছি এটা খুবই নরমাল সিক্রেশন, এটা কিন্তু কোন রোগ না এটা শুধুমাত্র একটা পরিবেশের জন্য অনেকক্ষণ ধরে কাপড়-চোপড় চেঞ্জ না করাটা জন্য অথবা কাজের যে পরিবেশ যেখানে অনেক লম্বা সময় ধরে দাঁড়িয়ে থাকা বসে থাকা সেটার জন্য একটু সিক্রেশনটা আসে। হয়তো নিয়মিত পরিষ্কার হয় না তার জন্য মেয়েদের যৌনাঙ্গে দূর্গন্ধ হতে পারে

মেয়েদের যৌনাঙ্গে দূর্গন্ধ হবার কারণ এবং দূর্গন্ধ দূর করার উপায়

এটা থেকে পরিত্রান পাওয়ার উপায় কি?

যাদের অনেক সময় ধরে বাইরে কাজ করতে হয় তাদের কিছু রুলস জানা থাকা ভালো সাথে আপনারা এক্সট্রা আন্ডার ওয়ে ব্যবহার করতে পারেন এবং যখন নিচের আন্ডারওয়ার টা একটু স্যাঁতসেঁতে হয়ে গেছে তখন সেটা পরিবর্তন করতে হবে তাদেরকে অবশ্যই প্রাইভিসি থাকতে হবে এটা যদি না থাকে তাহলে নিজেদেরকে একটু এরেন্জ করে নিতে হবে।এখন আসেন অস্বাভাবিক কিছু হলে যেমন কিছু কিছু জিনিস আছে কিছু কন্ডিশন আছে যেখানে সেক্রেশন গুলো আর একটু বেড়ে যায় এবং যদি কোন ইনফেকশন হয় কমন ইনফেকশন এর মধ্যে ডক্টরের ভাষায় বলে হয় স্পাইসডিশ অথবা জরায়ুর ভিতরে যদি কোন ইনফ্রশন কোন কারনে।কোন বিশেষ সময় গুলোতে তাহলে সেটা টিটমেন্ট ঠিকমতো করতে হবে যদি উপরোক্ত কোন লক্ষণ দেখার পর কারোর যৌনাঙ্গ থেকে দুর্গন্ধ যাচ্ছে না অথবা  সেক্রেশন  পরিমাণটা মনে হচ্ছে আপাতদৃষ্টিতে একটু বেশি তখন অবশ্যই গাইনোকলজিস্ট শরণাপন্ন হন তখন আপনাদের জন্য সুবিধা। কারণ সেই গাইনোকলজিস্ট আপনার ভিতরে যে সমস্যাটি দেখে দিচ্ছে,

এবং সেক্রেশন হওয়ার পর কোন ইনফেকশন থাকে তখন তৎক্ষণাৎ চিকিৎসা অথবা সেটা নিরাময় করার ব্যবস্থা আপনাকে বলে দিবে। এছাড়া আরো কিছু ব্যাপার আছে যেমন যদি কারো ডায়াবেটিস হয় এমন অনেক আছে যারা বারবার ডক্টরের কাছে গিয়ে  সেক্রেশনের জন্য তাকে ডক্টর প্রথমবার চিকিৎসা দেওয়ার পর দ্বিতীয়বার চিকিৎসা দেওয়ার পরও যদি তার সমস্যাটি ঠিক না হয় তখন তার ব্লাড সুগার টেস্ট করতে গেলে দেখা যায় সে ডায়াবেটিসে রোগী ।ডায়াবেটিসের জন্য কিন্তু হঠাৎ করে সেখানে সেক্রেশন জমতে পারে আর সেটা পর্যাক্রমে দুর্গন্ধ হতে থাকে।এছাড়া আরো কিছু ডিজিজ আছে যেমন জরায়ুর মুখে কোন পলিপ হওয়া, জরায়ুর মুখে কোন আচার জাতীয় কোন পরিবর্তন হওয়া, প্রেগনেন্সি হওয়া ,এই সমস্ত কারণে কিন্তু সেখানে সেক্রেশন বাড়তে পারে। আর দুর্গন্ধ জিনিসটা সেকেন্ডারি ডারি সেটা যদি ঠিকমতো পরিষ্কার করা না হয় অথবা সেটা যদি কোন স্বাভাবিক না অস্বাভাবিক কারণ হয়ে থাকে তাহলে শুধুমাত্র ওখানে দুর্গন্ধ হতে পারে। এখানে সব মেয়েদের প্রতি অনুরোধ থাকবে আপনাদের যাদের প্রাইভেট পার অথবা প্রাইভেট আন্ডার ওয়ে ইউজ করেন সেটা সব সময় বেশি রাখতে হবে এবং তার সাথে আপনাদের যখনই মনে হবে এটা স্বাভাবিক এর থেকে একটু অস্বাভাবিক অথচ স্বাভাবিক এর থেকেও বেশি অথবা রংটা একটু অন্যরকম, সেখানে চুলকানি হচ্ছে তখনই ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে এবং সে ভাবে চিকিৎসা নিতে হবে।

আলোচনা করেছেনঃ
প্রফেসর ডাঃ সেলিনা আক্তার
স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যা বিশেষজ্ঞ
শহীদ মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ
গাইনী কনসালট্যান্ট, ইউনাইটেড হাসপাতাল গুলশান-২ শাখা
এবং প্রেসক্রিপশন পয়েন্ট বানানী শাখা।

পুরুষাঙ্গ পিচ্ছিল পানি বের হওয়া কতটা খারাপ নাকি ভালো sex health tips
স্বামীর উপর উঠে সহবাস করলে কী হয় গর্ভাবস্থায় সহবাস পদ্ধতি
লম্বা হওয়া ৮ টি সহজ এবং বৈজ্ঞানিক প্রাকৃতিক উপায়ে
মেয়েদের স্তন টাইট ও খাড়া করার উপায় - ব্রেস্ট ঝুলে গেলে করণীয়
Admin
the authorAdmin
I hope you are enjoying this article. Thanks for visiting this website.

Leave a Reply